পদার্থবিজ্ঞানের ১৪১ টি ছোটো প্রশ্ন এবং উত্তর জেনে রাখুন

পদার্থবিজ্ঞানের ১৪১ টি ছোটো প্রশ্ন এবং উত্তর জেনে রাখুন 141 short questions in physics

 

 

আপনাদের প্রস্তুতির জন্য আমরা প্রতিনিয়ত কিছুনা কিছু আপডেট দিয়ে থাকি। আজ বিজ্ঞান থেকে অতি গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ উত্তর নিয়ে হাজির হয়েছি। যে কোনো সরকারি চাকরীর পরীক্ষাতে এই প্রশ্ন গুলি খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এই বিষয়ে আমরা নিশ্চিত। একটু সময় করে সকল প্রশ্ন গুলি পড়ে নেবেন।

পদার্থ বিজ্ঞানের প্রশ্ন ১০০+

ফারেনহাইট ও সেলসিয়াস স্কেলে সমান তাপমাত্রা নির্দেশ করে – (- ৪০০ ) তাপমাত্রায় ।
স্বাভাবিক অবস্থায় একজন মানুষের উপর প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে বায়ুর চাপ – ১৫ পাউন্ড ।
ক্লিনিক্যাল থার্মোমিটারে দাগ কাটা থাকে – (৯০০ -১১০০) F ।
থার্মোমিটারে পারদ ব্যবহারের কারণ – অল্প তাপে আয়তন বৃদ্ধি পায় ।
আলো এক প্রকার – শক্তি ।
আলোক মাধ্যম – তিনটি , ১) স্বচ্ছ, ২) ঈষদ স্বচ্ছ ও ৩) অস্বচ্ছ ।
প্রতিফলনের সূত্র – দুইটি ।
প্রতিসরণের সূত্র – দুইটি ।
পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলনের শর্ত – দুটি ।
সাদা আলো সাতটি বর্ণের সমাহার ।
লেন্স দুই প্রকার ১) অপসারী, ২) অভিসারী।
দৃষ্টির ত্রুটি মোট চারটি – ১) হ্রস্ব দৃষ্টি, ২) দীর্ঘ দৃষ্টি, ৩) বার্ধক্য দৃষ্টি ও ৪) বিষম দৃষ্টি বা নকুলা ।
তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বেশি – লাল আলোর ।
তরঙ্গ দৈর্ঘ্য কম – বেগুনী আলোর ।
বিক্ষেপণ কম – লাল আলোর ।

 

পদার্থবিজ্ঞানের ১৪১ টি ছোটো প্রশ্ন

পদার্থবিজ্ঞানের ১৪১ টি ছোটো প্রশ্ন এবং উত্তর জেনে রাখুন

বস্তুর বর্ণ পদার্থের কোন ধর্ম নয়, এটি আলোকের একটি ধর্ম ।
নীল কাচের মধ্য দিয়ে হলুদ ফুল – কালো দেখায় ।
লাল আলোতে গাছের পাতা – কালো দেখায় ।
নীল কাচের মধ্য দিয়ে সাদা ফুল – নীল দেখায় ।
লাল ফুলকে সবুজ আলোয় – কালো দেখায় ।
সূর্য রশ্মি শরীরে পড়লে – ভিটামিন ডি তৈরী হয় ।
সবচেয়ে ছোট তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের বিকিরণ – গামা রশ্মি ।
সবচেয়ে বড় তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের বিকিরণ – বেগুণী রশ্মি ।
শরীরের ত্বকে ভিটামিন তৈরীতে সাহায্য করে – পরিমিত অতিবেগুণী রশ্মি ।
আমাদের দর্শনাভূতির স্থায়িত্বকাল – ০.১ সেকেন্ড ।
যে সকল বস্তুর আকর্ষণ ও দিকনির্দশক ধর্ম আছে – চম্বুক পদার্থ ।
চৌম্বকের চুম্বকত্ব একটি – ভৌত ধর্ম ।

আপনার কম্পিউটার ২৪/৭ চালু রাখলে কি হবে?

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ছে আরও ১৫ দিন

 

পদার্থবিজ্ঞানের ১৪১ টি ছোটো প্রশ্ন
চৌম্বকের প্রকারভেদ – ১) প্রাকৃতিক চৌম্বক, ২) কৃত্রিম চৌম্বক ও ৩) তড়িৎ চৌম্বক ।
চৌম্বক পদার্থ – টিন, আয়রণ, কপার, কোবাল্ট, নিকেল ইত্যাদি ।
চৌম্বক পদার্থের প্রকারভেদ – ১) ডায়া চৌম্বক, ২) প্যারা চৌম্বক ও ৩) ফেরো চৌম্বক ।
মেরু অঞ্চলে চৌম্বকের আকর্ষণ – সবচেয়ে বেশী ।
পৃথিবীর চৌম্বক উত্তর মেরু আসলে – পৃথিবীর ভৌগলিক দক্ষিণ ।
তড়িৎ দুই প্রকার – ১) স্থির তড়িৎ ও ২) চল তড়িৎ ।
চল তড়িৎ দুই প্রকার – ১) এ. সি. তড়িৎ ২) ডি. সি. তড়িৎ ।

ডি. সি. প্রবাহ পাওয়া যায় – ব্যাটারি থেকে ।
রোধ পরিবাহীর চারটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে – ১) উপাদান, ২) দৈর্ঘ্য, ৩) প্রস্থচ্ছেদ ও ৪) তাপমাত্রা।
মাধ্যম তিন প্রকার – ১) পরিবাহী, ২) অর্ধপরিবাহী, ৩) অন্তরক বা অপরিবাহী।
রাডার (Radar) হলো – Radio Detection and Ranging ।
অপটিক্যাল ফাইবারে ডাটা পাস এর কাজে ব্যবহৃত হয় – পূর্ণঅভ্যন্তরীণ প্রতিফলন ।
ইলেকট্রনিক্স এর যাত্রা শুরু – ট্রানজিস্টরের আবিস্করের সময় ।
ক্যামেরার লেন্সের পেছনের পর্দায় আস্তরণ দেয়া হয় – সিজিয়াম দিয়ে ।